বিক্রয় প্রসার কাকে বলে? বিক্রয় প্রসার-এর গুরুত্ব ও কৌশল

Rate this post

প্রবন্ধটির আলোচ্য বিষয় বিক্রয় প্রসার কাকে বলে? বিক্রয় প্রসার-এর গুরুত্ব ও কৌশল। নিচে বিষয়টি নিয়ে বিস্তার ভাবে আলোচনা করা হয়েছে।

Contents

বিক্রয় প্রসার কাকে বলে

বিক্রয় প্রসার হলো বিপণন প্রসারের একটি উপাদান। এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যা বর্তমান ও সম্ভাব্য ক্রেতাদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের পণ্য বা সেবা সম্পর্কে অবহিত করে এবং ক্রয় প্রেরণা সৃষ্টি করে। বিক্রয় প্রসার স্বল্পমেয়াদে পণ্য বিক্রয় বৃদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হয়।

বিক্রয় প্রসার-এর গুরুত্ব

বিক্রয় প্রসার-এর গুরুত্ব নিম্নরূপ:

  • পণ্য বা সেবা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি: বিক্রয় প্রসার পণ্য বা সেবা সম্পর্কে বর্তমান ও সম্ভাব্য ক্রেতাদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি পণ্য বা সেবার বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, মূল্য ইত্যাদি সম্পর্কে ক্রেতাদের অবহিত করে।
  • ক্রয় প্রেরণা সৃষ্টি: বিক্রয় প্রসার ক্রয় প্রেরণা সৃষ্টিতে সহায়তা করে। এটি ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করে।
  • প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান সুসংহত: বিক্রয় প্রসার প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান সুসংহত করতে সহায়তা করে। এটি পণ্য বা সেবাকে অন্যান্য প্রতিযোগীদের থেকে আলাদা করে এবং ক্রেতাদের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলে।

বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল

বিক্রয় প্রসার বিভিন্ন কৌশলের মাধ্যমে করা যেতে পারে। এর মধ্যে কয়েকটি কৌশল হলো:

  • প্রচার: প্রচার হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। এটি পণ্য বা সেবা সম্পর্কে তথ্য প্রচার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রচার মাধ্যম হিসেবে পত্রিকা, টেলিভিশন, রেডিও, ইন্টারনেট ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • প্রদর্শনী: প্রদর্শনী হলো বিক্রয় প্রসার-এর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। এটি পণ্য বা সেবা সম্পর্কে ক্রেতাদের সরাসরি পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি আকর্ষণীয় কৌশল। এটি ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা সম্পর্কে জানার এবং ক্রয় করার জন্য উৎসাহিত করে।
  • উপহার ও ছাড়: উপহার ও ছাড় হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি কার্যকর কৌশল। এটি ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করে।

প্রচার: প্রচার হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। এটি পণ্য বা সেবা সম্পর্কে তথ্য প্রচার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রচার মাধ্যম হিসেবে পত্রিকা, টেলিভিশন, রেডিও, ইন্টারনেট ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে।

প্রচারের মাধ্যমে পণ্য বা সেবার বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, মূল্য ইত্যাদি সম্পর্কে ক্রেতাদের অবহিত করা হয়। এছাড়াও, প্রচারের মাধ্যমে ক্রেতাদের মধ্যে পণ্য বা সেবা সম্পর্কে আগ্রহ ও উৎসাহ সৃষ্টি করা হয়।

প্রচারের বিভিন্ন মাধ্যম হলো

  • পত্রিকা: পত্রিকা হলো প্রচারের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম। পত্রিকার মাধ্যমে বিশাল সংখ্যক মানুষের কাছে পণ্য বা সেবা সম্পর্কে তথ্য পৌঁছে দেওয়া যায়।
  • টেলিভিশন: টেলিভিশন হলো প্রচারের একটি শক্তিশালী মাধ্যম। টেলিভিশনের মাধ্যমে পণ্য বা সেবা সম্পর্কে দ্রুত এবং কার্যকরভাবে তথ্য প্রচার করা যায়।
  • রেডিও: রেডিও হলো একটি জনপ্রিয় মাধ্যম। রেডিওর মাধ্যমে পণ্য বা সেবা সম্পর্কে তথ্য প্রচার করা যায়।
  • ইন্টারনেট: ইন্টারনেট হলো প্রচারের একটি ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় মাধ্যম। ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য বা সেবা সম্পর্কে তথ্য দ্রুত এবং সহজেই প্রচার করা যায়।

প্রদর্শনী: প্রদর্শনী হলো বিক্রয় প্রসার-এর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। এটি পণ্য বা সেবা সম্পর্কে ক্রেতাদের সরাসরি পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রদর্শনীতে পণ্য বা সেবা প্রদর্শন করা হয় এবং ক্রেতাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা হয়।

প্রদর্শনীর মাধ্যমে পণ্য বা সেবার বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, মূল্য ইত্যাদি সম্পর্কে ক্রেতাদের সরাসরি জানানো যায়। এছাড়াও, প্রদর্শনীর মাধ্যমে ক্রেতাদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলা যায়।

প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি আকর্ষণীয় কৌশল। এটি ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা সম্পর্কে জানার এবং ক্রয় করার জন্য উৎসাহিত করে।

প্রতিযোগিতা ও পুরস্কারের মাধ্যমে ক্রেতাদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক ভাবনা জাগ্রত করা হয়। এছাড়াও, পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করা হয়।

উপহার ও ছাড়: উপহার ও ছাড় হলো বিক্রয় প্রসার-এর একটি কার্যকর কৌশল। এটি ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করে।

উপহার প্রদানের মাধ্যমে ক্রেতাদের কাছে পণ্য বা সেবাটিকে আকর্ষণীয় করে তোলা যায়। ছাড় প্রদানের মাধ্যমে ক্রেতাদের পণ্য বা সেবাটিকে সাশ্রয়ী মূল্যে কেনার সুযোগ দেওয়া যায়।

বিক্রয় প্রসার-এর সফলতা নির্ভর করে কয়েকটি বিষয়ের উপর। এর মধ্যে কয়েকটি বিষয় হলো

  • ক্রেতাদের চাহিদা ও আগ্রহ বিবেচনা করা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনা করার সময় ক্রেতাদের চাহিদা ও আগ্রহ বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • প্রয়োজনীয় বাজেট বরাদ্দ করা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় বাজেট বরাদ্দ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • সঠিক কৌশল নির্বাচন করা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সঠিক কৌশল নির্বাচন করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • কর্মীদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কর্মীদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা থাকা গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশের বাজারে বিক্রয় প্রসার-এর গুরুত্ব দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকতে এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করতে বিক্রয় প্রসার একটি কার্যকর হাতিয়ার।

বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচনের সময় নিম্নলিখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করা উচিত

  • পণ্য বা সেবার প্রকৃতি: পণ্য বা সেবার প্রকৃতি বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। উদাহরণস্বরূপ, একটি জটিল পণ্যের জন্য বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মাধ্যমে ক্রেতাদের শিক্ষাদানের প্রয়োজন হতে পারে।
  • ক্রেতাদের লক্ষ্য: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্যবস্তু ক্রেতাদের ধরন বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। উদাহরণস্বরূপ, তরুণ ক্রেতাদের লক্ষ্য করে বিক্রয় প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করা হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • বাজেট: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের জন্য বরাদ্দকৃত বাজেট বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। উদাহরণস্বরূপ, কম বাজেট থাকলে অনলাইন বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের উপর জোর দেওয়া যেতে পারে।
  • সময়সীমা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সময়সীমা বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। উদাহরণস্বরূপ, দ্রুত বিক্রয় বৃদ্ধির প্রয়োজন হলে ছাড় প্রদান বা প্রতিযোগিতা আয়োজনের মতো কৌশল ব্যবহার করা যেতে পারে।

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার সময় নিম্নলিখিত বিষয়গুলোর দিকে নজর দেওয়া উচিত

  • ক্রেতাদের প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সফলতা নির্ধারণের জন্য ক্রেতাদের প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • প্রয়োজনে পরিবর্তন করা: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের ফলাফল পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজনে পরিবর্তন করা উচিত।

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করা যেতে পারে

  1. লক্ষ্য নির্ধারণ: প্রথমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। লক্ষ্য নির্ধারণের সময় পণ্য বা সেবার প্রকৃতি, ক্রেতাদের লক্ষ্য, বাজেট এবং সময়সীমা বিবেচনা করতে হবে।
  2. টার্গেট মার্কেট নির্বাচন: লক্ষ্য নির্ধারণের পর টার্গেট মার্কেট নির্বাচন করতে হবে। টার্গেট মার্কেট নির্বাচনের সময় ক্রেতাদের চাহিদা, আগ্রহ এবং আচরণ বিবেচনা করতে হবে।
  3. কৌশল নির্বাচন: টার্গেট মার্কেট নির্বাচনের পর বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচন করতে হবে। কৌশল নির্বাচনের সময় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে।
  4. বাজেট বরাদ্দ: কৌশল নির্বাচনের পর বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের জন্য বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।
  5. কর্মপরিকল্পনা তৈরি: বাজেট বরাদ্দের পর বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের জন্য কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। কর্মপরিকল্পনায় কার্যক্রমের সময়সীমা, দায়িত্ব এবং মূল্যায়ন পদ্ধতি উল্লেখ করতে হবে।
  6. কার্যক্রম বাস্তবায়ন: কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।
  7. মূল্যায়ন: কার্যক্রম বাস্তবায়নের পর ফলাফল পর্যবেক্ষণ করে মূল্যায়ন করতে হবে। মূল্যায়নের ভিত্তিতে প্রয়োজনে পরিবর্তন করতে হবে।

বিক্রয় প্রসার একটি কার্যকর হাতিয়ার যা পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে। তবে, বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার সময় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করে সঠিক কৌশল নির্বাচন এবং কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা জরুরি।

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার গুলো কি

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার হলো এমন কার্যক্রম যা পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধির জন্য পরিচালিত হয়। বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার বিভিন্ন ধরনের হতে পারে, যেমন:

  • প্রচার: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার করা।
  • প্রদর্শনী: পণ্য বা সেবা প্রদর্শনীর মাধ্যমে ক্রেতাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা।
  • প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: প্রতিযোগিতা, পুরস্কার, লটারী ইত্যাদির মাধ্যমে ক্রেতাদেরকে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করা।
  • ছাড় ও প্রমোট: ছাড়, কুপন, গিফট সার্টিফিকেট, রিটার্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদির মাধ্যমে ক্রেতাদেরকে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য আকর্ষণ করা।
  • বৃত্ত ও প্রশিক্ষণ: ব্যবসায়িক গ্রাহকদের জন্য প্রশিক্ষণ ও বৃত্তি প্রদান।
  • পারস্পরিক প্রচারণা: অন্য ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে বিক্রয় প্রচারণা পরিচালনা।

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার নির্বাচনের সময় নিম্নলিখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করা উচিত:

  • পণ্য বা সেবার প্রকৃতি: পণ্য বা সেবার প্রকৃতি বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার নির্বাচনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। উদাহরণস্বরূপ, একটি জটিল পণ্যের জন্য বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মাধ্যমে ক্রেতাদের শিক্ষাদানের প্রয়োজন হতে পারে।
  • ক্রেতাদের লক্ষ্য: বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার নির্বাচনের সময় ক্রেতাদের লক্ষ্য বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণস্বরূপ, তরুণ ক্রেতাদের লক্ষ্য করে বিক্রয় প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করা হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • বাজেট: বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার নির্বাচনের সময় বাজেট বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণস্বরূপ, কম বাজেট থাকলে অনলাইন বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের উপর জোর দেওয়া যেতে পারে।
  • সময়সীমা: বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার নির্বাচনের সময় সময়সীমা বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণস্বরূপ, দ্রুত বিক্রয় বৃদ্ধির প্রয়োজন হলে ছাড় প্রদান বা প্রতিযোগিতা আয়োজনের মতো কৌশল ব্যবহার করা যেতে পারে।

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার সঠিকভাবে নির্বাচন এবং কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা হলে পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে।

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার কয়টি

বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ারকে সাধারণত দুটি প্রধান ভাগে ভাগ করা যায়:

  • ভোক্তা-কেন্দ্রিক বিক্রয় প্রসার: এই ধরনের বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য হলো চূড়ান্ত ভোক্তাদেরকে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করা।
  • ব্যবসায়িক বিক্রয় প্রসার: এই ধরনের বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য হলো ব্যবসায়িক গ্রাহকদেরকে পণ্য বা সেবা কেনার জন্য উৎসাহিত করা।

ভোক্তা-কেন্দ্রিক বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের বিভিন্ন উদাহরণ হলো:

  • ছাড় ও প্রমোট: ছাড়, কুপন, গিফট সার্টিফিকেট, রিটার্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদি।
  • প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: প্রতিযোগিতা, পুরস্কার, লটারী ইত্যাদি।
  • প্রচার: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি মাধ্যমে বিজ্ঞাপন।
  • প্রদর্শনী: পণ্য বা সেবা প্রদর্শনীর মাধ্যমে ক্রেতাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ।

ব্যবসায়িক বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের বিভিন্ন উদাহরণ হলো:

  • ছাড় ও প্রমোট: ছাড়, কুপন, গিফট সার্টিফিকেট, রিটার্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদি।
  • প্রচার: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি মাধ্যমে বিজ্ঞাপন।
  • প্রদর্শনী: পণ্য বা সেবা প্রদর্শনীর মাধ্যমে ব্যবসায়িক গ্রাহকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ।
  • বৃত্তি ও প্রশিক্ষণ: ব্যবসায়িক গ্রাহকদের জন্য প্রশিক্ষণ ও বৃত্তি প্রদান।
  • পারস্পরিক প্রচারণা: অন্য ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে বিক্রয় প্রচারণা পরিচালনা।

এই দুই ধরনের বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার ছাড়াও আরও কিছু হাতিয়ার রয়েছে, যেমন:

  • হটলাইন বা ওয়েবসাইট: ক্রেতাদের প্রশ্ন বা অভিযোগের উত্তর দেওয়ার জন্য হটলাইন বা ওয়েবসাইট ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • গ্রাহক সেবা: ক্রেতাদের সন্তুষ্টি নিশ্চিত করার জন্য গ্রাহক সেবা প্রদান করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • পণ্য বা সেবার গুণমান: পণ্য বা সেবার গুণমান বৃদ্ধি করলে ক্রেতাদের সন্তুষ্টি বৃদ্ধি পায় এবং বিক্রয় বৃদ্ধি পায়।

অতএব, বলা যায় যে বিক্রয় প্রসারের হাতিয়ার মোট কতটি তা নির্ভর করে কীভাবে এগুলোকে শ্রেণীবদ্ধ করা হয় তার উপর। তবে, উপরে উল্লেখিত হাতিয়ারগুলো বিক্রয় প্রসারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের উদাহরণ

  • প্রচার: একটি নতুন মোবাইল ফোন লঞ্চের জন্য, একটি কোম্পানি টেলিভিশন, রেডিও, এবং ইন্টারনেটে বিজ্ঞাপন দিতে পারে। তারা পত্রিকা এবং ম্যাগাজিনে বিজ্ঞাপন দিতে পারে বা সোশ্যাল মিডিয়াতে ক্যাম্পেইন চালাতে পারে।
  • প্রদর্শনী: একটি নতুন গাড়ি লঞ্চের জন্য, একটি কোম্পানি একটি গাড়ি শোতে অংশ নিতে পারে। তারা গ্রাহকদের গাড়িটি দেখতে এবং পরীক্ষা করার সুযোগ দিতে পারে।
  • প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: একটি নতুন ফাস্ট ফুড আইটেম প্রচার করার জন্য, একটি কোম্পানি গ্রাহকদের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার জন্য আমন্ত্রণ জানাতে পারে। বিজয়ীদের আইটেমটি বিনামূল্যে পাওয়ার সুযোগ দেওয়া যেতে পারে।
  • উপহার ও ছাড়: একটি নতুন ইলেকট্রনিক ডিভাইস বিক্রি করার জন্য, একটি কোম্পানি গ্রাহকদের ছাড় বা উপহার দেওয়ার প্রস্তাব দিতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, তারা একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের উপর ছাড় দিতে পারে বা ক্রয়ের সাথে একটি বিনামূল্যের গিফট সার্টিফিকেট অফার করতে পারে।

এই উদাহরণগুলি থেকে বোঝা যায় যে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম বিভিন্ন উপায়ে পরিচালনা করা যেতে পারে। সঠিক কৌশল নির্বাচন এবং কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা গুরুত্বপূর্ণ।

বিক্রয় প্রসার-এর সুবিধা

  • পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধি করে: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মাধ্যমে ক্রেতাদের পণ্য বা সেবা সম্পর্কে অবহিত করা হয় এবং তাদের ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করা হয়। এর ফলে পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধি পায়।
  • ব্র্যান্ড সচেতনতা বাড়ায়: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মাধ্যমে পণ্য বা সেবার ব্র্যান্ড সচেতনতা বাড়ানো যায়। এর ফলে নতুন গ্রাহকরা পণ্য বা সেবা সম্পর্কে জানতে পারেন এবং ব্র্যান্ডের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠতে পারেন।
  • প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান শক্তিশালী করে: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান শক্তিশালী করা যায়। এর ফলে প্রতিযোগীদের থেকে এগিয়ে থাকা যায় এবং বিক্রয় বৃদ্ধি করা যায়।

বিক্রয় প্রসার-এর অসুবিধা

  • খরচবহুল হতে পারে: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনা ব্যয়বহুল হতে পারে। এর কারণ হলো, বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বিভিন্ন ধরনের মাধ্যম ব্যবহার করা হয়, যেমন বিজ্ঞাপন, প্রদর্শনী, প্রতিযোগিতা, ছাড় ইত্যাদি।
  • ক্ষণস্থায়ী হতে পারে: বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের ফলাফল ক্ষণস্থায়ী হতে পারে। এর কারণ হলো, বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম সাধারণত স্বল্পমেয়াদী হয়।

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করা উচিত:

  • লক্ষ্য নির্ধারণ: প্রথমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। লক্ষ্য নির্ধারণের সময় পণ্য বা সেবার প্রকৃতি, ক্রেতাদের লক্ষ্য, বাজেট এবং সময়সীমা বিবেচনা করতে হবে।
  • টার্গেট মার্কেট নির্বাচন: লক্ষ্য নির্ধারণের পর টার্গেট মার্কেট নির্বাচন করতে হবে। টার্গেট মার্কেট নির্বাচনের সময় ক্রেতাদের চাহিদা, আগ্রহ এবং আচরণ বিবেচনা করতে হবে।
  • কৌশল নির্বাচন: টার্গেট মার্কেট নির্বাচনের পর বিক্রয় প্রসার-এর কৌশল নির্বাচন করতে হবে। কৌশল নির্বাচনের সময় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে।
  • বাজেট বরাদ্দ: কৌশল নির্বাচনের পর বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের জন্য বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।
  • কর্মপরিকল্পনা তৈরি: বাজেট বরাদ্দের পর বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের জন্য কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। কর্মপরিকল্পনায় কার্যক্রমের সময়সীমা, দায়িত্ব এবং মূল্যায়ন পদ্ধতি উল্লেখ করতে হবে।
  • কার্যক্রম বাস্তবায়ন: কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।
  • মূল্যায়ন: কার্যক্রম বাস্তবায়নের পর ফলাফল পর্যবেক্ষণ করে মূল্যায়ন করতে হবে। মূল্যায়নের ভিত্তিতে প্রয়োজনে পরিবর্তন করতে হবে।

বিক্রয় প্রসার একটি কার্যকর হাতিয়ার যা পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে। তবে, বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার সময় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করে সঠিক কৌশল নির্বাচন এবং কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা জরুরি।

বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপনের মধ্যে পার্থক্য দেখাও

বৈশিষ্ট্য বিক্রয় প্রসার বিজ্ঞাপন
সংজ্ঞা পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধির জন্য পরিচালিত কার্যক্রমের সমষ্টি পণ্য বা সেবার সম্পর্কে তথ্য প্রদান ও জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য পরিচালিত কার্যক্রম
লক্ষ্য পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধি পণ্য বা সেবার সম্পর্কে তথ্য প্রদান ও জনসচেতনতা সৃষ্টি
মাধ্যম বিভিন্ন ধরনের মাধ্যম ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন: প্রদর্শনী, ছাড়, কুপন, প্রতিযোগিতা, পুরস্কার, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি প্রধানত গণমাধ্যম, যেমন: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি
নিয়ন্ত্রণ ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বা বিজ্ঞাপন সংস্থা
খরচ বিভিন্ন ধরনের খরচ হতে পারে, যেমন: পণ্যের ছাড়, কুপন, প্রতিযোগিতা, পুরস্কার, কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ, গ্রাহক সেবা ইত্যাদি প্রচারমাধ্যমের খরচ
সময়কাল বিভিন্ন ধরনের সময়কাল হতে পারে, যেমন: দীর্ঘমেয়াদী, মধ্যমেয়াদী, স্বল্পমেয়াদী সাধারণত স্বল্পমেয়াদী
প্রভাব ক্রেতাদের পছন্দ, অভিজ্ঞতা ও আচরণে প্রভাব ফেলতে পারে ক্রেতাদের পছন্দ, অভিজ্ঞতা ও আচরণে প্রভাব ফেলতে পারে

বিক্রয় প্রসার ও বিজ্ঞাপন উভয়ই পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম। তবে, এদের মধ্যে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য রয়েছে। বিক্রয় প্রসার একটি ব্যাপক পরিসর কার্যক্রম, যা বিজ্ঞাপন ছাড়াও অন্যান্য কৌশলও অন্তর্ভুক্ত করে। বিজ্ঞাপন একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্য পরিচালিত একটি নির্দিষ্ট কার্যক্রম।

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের ধরন

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমকে দুটি প্রধান ভাগে ভাগ করা যায়:

  • ভোক্তা-কেন্দ্রিক বিক্রয় প্রসার: এই ধরনের বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য হলো চূড়ান্ত ভোক্তাদেরকে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য উৎসাহিত করা।
  • ব্যবসায়িক বিক্রয় প্রসার: এই ধরনের বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের লক্ষ্য হলো ব্যবসায়িক গ্রাহকদেরকে পণ্য বা সেবা কেনার জন্য উৎসাহিত করা।

ভোক্তা-কেন্দ্রিক বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের বিভিন্ন উদাহরণ হলো:

  • ছাড় ও প্রমোট: ছাড়, কুপন, গিফট সার্টিফিকেট, রিটার্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদি।
  • প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার: প্রতিযোগিতা, পুরস্কার, লটারী ইত্যাদি।
  • প্রচার: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি মাধ্যমে বিজ্ঞাপন।
  • প্রদর্শনী: পণ্য বা সেবা প্রদর্শনীর মাধ্যমে ক্রেতাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ।

ব্যবসায়িক বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের বিভিন্ন উদাহরণ হলো:

  • ছাড় ও প্রমোট: ছাড়, কুপন, গিফট সার্টিফিকেট, রিটার্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদি।
  • প্রচার: টিভি, রেডিও, পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি মাধ্যমে বিজ্ঞাপন।
  • প্রদর্শনী: পণ্য বা সেবা প্রদর্শনীর মাধ্যমে ব্যবসায়িক গ্রাহকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ।
  • বৃত্তি ও প্রশিক্ষণ: ব্যবসায়িক গ্রাহকদের জন্য প্রশিক্ষণ ও বৃত্তি প্রদান।
  • পারস্পরিক প্রচারণা: অন্য ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে বিক্রয় প্রচারণা পরিচালনা।

বিজ্ঞাপন সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন: বিজ্ঞাপন কি বা কাকে বলে

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মূল্যায়ন

বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সফলতা মূল্যায়ন করা গুরুত্বপূর্ণ। মূল্যায়নের মাধ্যমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের কার্যকারিতা এবং দক্ষতা সম্পর্কে জানা যায়। বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের মূল্যায়নের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন:

  • বিক্রয় পরিমাণ: বিক্রয় পরিমাণ বাড়ার মাধ্যমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সফলতা মূল্যায়ন করা যেতে পারে।
  • ব্র্যান্ড সচেতনতা: ব্র্যান্ড সচেতনতা বাড়ার মাধ্যমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সফলতা মূল্যায়ন করা যেতে পারে।
  • প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান: প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান শক্তিশালী হওয়ার মাধ্যমে বিক্রয় প্রসার কার্যক্রমের সফলতা মূল্যায়ন করা যেতে পারে।

বিক্রয় প্রসার একটি কার্যকর হাতিয়ার যা পণ্য বা সেবার বিক্রয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে। তবে, বিক্রয় প্রসার কার্যক্রম পরিচালনার সময় উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করে সঠিক কৌশল নির্বাচন এবং কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা জরুরি।

Leave a Comment